সুনির্দিষ্ট প্রতিকার আইন অনুসারে দলিল সংশোধন ও সংশোধনের মূলনীতি। Part-09

0
234
সুনির্দিষ্ট প্রতিকার আইন অনুসারে দলিল সংশোধন ও সংশোধনের মূলনীতিসমূহ । Part-09

Specific Relief Act 1877- Part-09।  সুনির্দিষ্ট প্রতিকার আইন ১৮৭৭ (পর্ব-০৯)

যখন দলিল সংশোধন করা যেতে পারে (When Instruments may be Rectified) 

সুনির্দিষ্ট প্রতিকার আইনের  ধারা-৩১ বলা হয়েছে কখন দলিল সংশোধন করা যাবে। এই ধারাতে বলা হয়েছে,

সাধারনত যদি কোন দলিল ভুল ক্রমে বা প্রতারণা মূলক ভাবে সম্পাদিত হয়,তাহলে উক্ত দলিল সংশোধনের জন্য আদালতে মামলা দায়ের করা যাবে। তবে চুক্তি যে ভুল ক্রমে বা প্রতারনা মুলক ভাবে সম্পাদন করা হয়েছে তা বাদিকে আদালতের নিকট সুনির্দিষ্ট ভাবে প্রমান করতে হবে। আদালত দলিল সংশোধন করার নির্দেশ প্রদানে পুর্বে দলিল করার উদ্দেশ্য কি ছিল এবং তৃতীয় পক্ষে স্বার্থ জড়িত আছে কিনা সেই বিষয় বিবেচনা করবে।

উদাহরণঃ 

ক তার বাসার একটি ফ্ল্যাট (A1) ‘খ’ এর নিকট বিক্রি করার জন্য চুক্তি করে , কিন্তু চুক্তি করার পর দেখা যায় A1 এর স্থানে ভুল ক্রমে B1 উল্লেখ করা হয়। পরর্বতিতে ক উক্ত দলিল সংশোধন করার জন্য আদালতে আবেদন করে। তাহলে আদালত উক্ত দলিল সংশোধন করার জন্য নির্দেশ প্রদান করবে।

দলিল সংশোধনের মূলনীতি সমূহ (Principles of Rectification)

যদি কোন দলিল সংশোধনের জন্য মামলা দেয়ের করার হয় তাহলে আদালত অনুসন্ধান করে দেখবে যে, চুক্তির মুল উদ্দেশ্য কি ছিল বা আইনগত ফলাফল কি।  তবে চুক্তি এমন ভাবে সংশোধন করা জাবে না, যা চুক্তির মুল উদ্দেশ্য থেকে বা আইনগত উদ্দেশ্য থেকে আলাদা। (ধারা-৩৩)

সংশোধিত চুক্তি সুনির্দিষ্টভাবে কার্যকরকরণ (Specific Enforcement of rectified Contract)

যদি প্রথমে কোন চুক্তি সংশোধন করার জন্য আদালতে আবেদন করে এবং আদালত যদি সংশোধনের আদেশ দেয় তাহলে আরজীতে প্রার্থনা করলে বা আদালত উপযুক্ত মনে করলে সংশোধিত চুক্তি সুনির্দিষ্ট সম্পাদন করতে নির্দেশ দিতে পারেন। (ধারা-৩৪)

Facebook Comments